ঢাকা, রবিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ধর্মঘটে অনড় শ্রমিকেরা, আজ প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত

প্রকাশ: ২৭ আগস্ট, ২০২২ ৪:৩৫ : পূর্বাহ্ণ

সিলেট বিভাগের বিভিন্ন চা-বাগানের শ্রমিকেরা ন্যূনতম মজুরি ৩০০ টাকা নির্ধারণের দাবিতে গতকাল শুক্রবারও কর্মবিরতি বা ধর্মঘট অব্যাহত রেখেছেন। ৯ আগস্ট থেকে শুরু হওয়া আন্দোলনের বিভিন্ন পর্যায়ে শ্রম অধিদপ্তর, স্থানীয় প্রশাসন, মালিকপক্ষ এবং শ্রমিক প্রতিনিধিদের মধ্যে কয়েক দফা বৈঠক হয়েছে। কিন্তু কোনো মীমাংসা হয়নি। এ অবস্থায় আজ শনিবার চা-বাগানের মালিকপক্ষের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠকের কথা রয়েছে। শ্রমিকেরা প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন।

প্রধানমন্ত্রীর বৈঠক নিয়ে হবিগঞ্জের চান্দপুর চা-বাগানের পঞ্চায়েত কমিটির প্রধান সাধন সাঁওতাল বলেন, ‘আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে জীবন পরিচালনা করি। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে আমরা মা বলে ডাকি। মা আমাদের বিষয়টি নিয়ে চিন্তা করছেন জেনে আমরা খুবই আনন্দিত। আমরা আশা করি, তিনি আমাদের একটি সুন্দর সমাধান দেবেন।’

বাংলাদেশ নারী চা-শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি খায়রুন আক্তার বলেন, ‘আমরা ১৮ দিন ধরে ৩০০ টাকা মজুরির দাবিতে আন্দোলনে আছি। অবশেষে প্রধানমন্ত্রী আমাদের বিষয়টি নিয়ে মালিকদের সঙ্গে আলোচনায় বসছেন। আশা করি, তিনি ৩০০ টাকা বা এর কাছাকাছি মজুরি নির্ধারণ করবেন।’

গতকাল প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব এম এম ইমরুল কায়েস গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, আজ বিকেল ৪টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে চা-বাগানের মালিকদের সঙ্গে বৈঠক করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর দৈনন্দিন কর্মসূচিতেও শনিবার বিকেল ৪টায় চা-বাগান মালিকদের সঙ্গে বৈঠকের বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে। তবে বৈঠকে কারা উপস্থিত থাকবেন, সে বিষয়ে বিস্তারিত কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

জানা গেছে, মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে হবিগঞ্জের ২৪টি চা-বাগানে শ্রমিকদের কর্মবিরতি অব্যাহত রয়েছে। গতকাল শুক্রবার ১৮তম দিনের মতো শ্রমিকেরা কর্মবিরতি পালন করেন। বেলা ১১টা থেকে শ্রমিকেরা নিজ নিজ বাগানে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন।

একই দাবিতে গতকাল ১৪তম দিনের মতো কর্মবিরতি পালন করেন সিলেট ভ্যালির ২৩টি বাগানের চা-শ্রমিকেরা। গতকালও ফ্যাক্টরিগুলো বন্ধ ছিল। তবে ছিল না কোনো বিক্ষোভ কর্মসূচি।

গতকাল দুপুরে মৌলভীবাজারের ৯২টি চা-বাগানে পঞ্চায়েত কমিটি নিজ নিজ বাগানের নাচঘরে বৈঠক করে। বৈঠকে মজুরি ও পরবর্তী শ্রমিক আন্দোলনের বিষয়ে আলোচনা হয়। এতে সিদ্ধান্ত হয়, আজ প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে কোনো ঘোষণা না আসা পর্যন্ত তাঁরা কোনো নতুন কর্মসূচি দেবেন না। তবে আগের মতো কর্মবিরতি পালন করবেন। প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকের পর নতুন কর্মসূচি বা কাজে যোগদানের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে বলে জানিয়েছেন পঞ্চায়েত কমিটির সভাপতি সুবোদ কুর্মি।

চা-বাগানের শ্রমিকেরা বর্তমানে দৈনিক মজুরি পান মাত্র ১২০ টাকা। কয়েক মাস ধরে মালিকপক্ষের কাছে বারবার দাবি জানানো সত্ত্বেও মজুরি বাড়ানো হয়নি। সম্প্রতি নিত্যপণ্যসহ সবকিছুর দাম বাড়ায় শ্রমিকদের অবস্থা অসহনীয় পর্যায়ে পৌঁছে। এ প্রেক্ষাপটে ৯ আগস্ট থেকে চার দিন দুই ঘণ্টা করে কর্মবিরতি পালন করেন সারা দেশের দেড় শতাধিকা চা-বাগানের শ্রমিকেরা। মাঝখানে দুদিন বিরতি দিয়ে পুরোদমে কর্মবিরতি ও বিক্ষোভ শুরু করেন তাঁরা।

শ্রম অধিদপ্তর, স্থানীয় প্রশাসন ও মালিকপক্ষের সঙ্গে শ্রমিক নেতাদের কয়েক দফা বৈঠক হয়। এতে দুই দফায় মাত্র ২৫ টাকা বাড়িয়ে মজুরি ১৪৫ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়, যা স্বাভাবিকভাবেই প্রত্যাখ্যান করেন শ্রমিক নেতারা। এদিকে, শ্রমিকদের একটা অংশ চা-বাগানের মালিকদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সিদ্ধান্তের বিষয়টি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভিডিও বার্তার মাধ্যমে জানানোর দাবি জানিয়েছেন, যাতে তাঁরা নিশ্চিত হতে পারেন।

Print Friendly and PDF
ব্রেকিং নিউজঃ